বুধবার, ৩০ নভেম্বর ২০২২, ০১:০৯ অপরাহ্ন
শিরোনাম :
বাসার বিছানায় স্ত্রীর গলাকাটা লাশ, ফ্যানে ঝুলছিল স্বামী বিএনপি ২৬ শর্তে সোহরাওয়ার্দীতে গণসমাবেশের অনুমতি পেল গত পাঁচ বছরে মাংসের দাম বেড়েছে দ্বিগুণেরও বেশি নান্দাইলের ধরগাঁও গ্রাম থেকে ৩টি গরু হারিয়ে যাবার অভিযোগ ॥ থানায় জিডি মাদকদ্রব্যের অপব্যবহার রোধকল্পে সমম্বিত কর্মপরিকল্পনা প্রণয়ন কর্মশালা অনুষ্ঠিত সরাসরি রেমিট্যান্স আনার সুযোগ পেলো মোবাইল ব্যাংকিং প্রতিষ্ঠান, বাংলাদেশ ব্যাংক থেকে সার্কুলার জারি নান্দাইলের পল্লীতে বাড়িঘরে হামলা ॥ টাকা সহ গরু লুট মহিলা সহ আহত ৫ ॥ ১০ জনের নামে মামলা নান্দাইলের পল্লীতে বাড়িঘরে হামলা ॥ টাকা সহ গরু লুট মহিলা সহ আহত ৫ ॥ ১০ জনের নামে মামলা ৩৮৩ পদে কারা অধিদপ্তরে নিয়োগ, দিতে হবে ডোপ টেস্ট বাংলাদেশকে বাঁচাতে হলে আওয়ামী লীগ ও মুক্তিযুদ্ধকে বাঁচাতে হবে : ওবায়দুল কাদের

গৃহবধু হত্যা মামলায় জড়িয়ে কৃষককে হয়রানি ॥ উর্ধ্বতন প্রশাসনের হস্তক্ষেপ কামনা

স্টাফ রিপোর্টার
  • Update Time : শনিবার, ১১ ডিসেম্বর, ২০২১
  • ১২৭ Time View

ময়মনসিংহের নান্দাইলে এক গৃহবধূ হত্যা মামলায় ষড়যন্ত্রমূলকভাবে জড়িয়ে অযথা হয়রানি করা হচ্ছে বলে এমনি অভিযোগ করছেন উপজেলার গাংগাইল ইউনিয়নের গয়েশপুর গ্রামের মৃত রইছ উদ্দিনের পুত্র মোঃ হেলাল উদ্দিন (৬০)। জানাগেছে, হেলাল উদ্দিন একজন নিরীহ কৃষক। ক্ষেতে-খামারে কাজ করেই তাঁর চলে জীবন সংসার। পরিবারে নিজ স্ত্রী, ৩ পুত্র সন্তান সহ মোট ১০জন সদস্যকে নিয়ে বসবাস করছেন। কিন্তু গত ১৮ই সেপ্টেম্বর/২০২১ইং তারিখ সন্ধ্যার দিকে হেলাল উদ্দিনের বাড়ি থেকে প্রায় ২ কিলোমিটার দূরে পাশ্ববর্তী গ্রাম শ্রীরামপুরের সামনে মদনপুর রাস্তার উপর ইয়াছমীন আক্তার (৩২) নামে গৃহবধূকে হত্যার ঘটনা ঘটে।

 

যেখানে গৃহবধুর স্বামী সাদ্দাম হোসেন নিজেই হত্যা করেছে বলে এলাকাবাসী সহ বিভিন্ন উক্ত হত্যার ঘটনায় ষড়যন্ত্র মূলকভাবে কৃষক হেলাল উদ্দিনের নাম মামলায় জড়িয়ে দেওয়া হয়। এতে হেলাল উদ্দিন তাঁর পরিবার-পরিজন নিয়ে অহেতুক ভোগান্তি ও হয়রানির শিকার হচ্ছেন। স্থানীয় ও একাধিক সূত্রে জানাগেছে, নিহত গৃহবধূ ইয়াসমীন আক্তার নেত্রকোণার কেন্দুয়া উপজেলার সোহাগপুর গ্রামের পিতা সিরাজ আলী ও মাতা বকুলা খাতুনের কন্যা। বিগত প্রায় ১৩ বছর পূর্বে ইসলামী শরীয়ত মোতাবেক নান্দাইল উপজেলার গাংগাইল ইউনিয়নের শ্রীরামপুর গ্রামের মো. হাদীছ মিয়ার পুত্র মো. সাদ্দাম হোসেন (৩৫) এর সাথে ইয়াসমীনের বিবাহ অনুষ্ঠিত হয়।

 

এরপর ইয়াসমীন ও সাদ্দামের দাম্পত্য জীবনে ছেলে নাঈম (৯) ও মেয়ে ফাতেমা আক্তার (২)কে নিয়ে চলছিল জীবন সংসার। এরই মধ্যে ৯ বৎসর পূর্বে স্বামী-স্ত্রীর মধ্যে কলহের সৃষ্টি হয়। এক পর্যায়ে প্রায় এক বৎসর পর্যন্ত স্বামীর অত্যাচার নির্যাতনের অসহ্য হয়ে ইয়াসমীন স্বামীকে ছেড়ে তাঁর বাবার বাড়িতে অবস্থান নিয়েছিল। পরবর্তীতে স্বামী-স্ত্রীর উভয় গ্রামের মাতাব্বরের সহায়তায় তারা দাম্পত্য জীবন শুরু করে। কিন্তুু গত ২/৩ বছর পূর্ব হইতে সাদ্দাম হোসেন আবারও তারঁ স্ত্রীকে অত্যাচার নির্যাতন করলেও স্ত্রী ইয়াসমীন আক্তার স্বামীর বাডিতে থাকতে চাইলেও থাকতে পারেনি। অবশেষে সাদ্দাম হোসেনের অত্যাচারে ১ বছর পূর্বে ইয়াসমীন সোহাগপুর গ্রামের বাবার বাড়িতে চলে যায়।

 

গত অক্টোবর মাসে সাদ্দাম হোসেন তাঁর এলাকার মাতাব্বর (গণ্যমান্য ব্যক্তিবর্গ)কে নিয়ে ইয়াসমীনকে নিয়ে আসে। কিন্তু স্ত্রী স্বামীর বাড়িতে আসার পরেও কিছুদিন পর আবারও অত্যাচার শুরু হলে ইয়াসমীন ১৮ই সেপ্টেম্বর সন্ধ্যায় বাবার বাড়িতে চলে যেতে থাকলে বাড়ির সামনে মদনপুর নামক রাস্তায় স্বামীর অস্ত্রের আঘাতে ইয়াসমীনের মৃত্যু হয়। তবে উক্ত স্বামী-স্ত্রীর মধ্যে ঝগড়ার বিষয়টি ফায়সালা করার লক্ষ্যে স্বামী সাদ্দাম হোসেনের জোরআপত্তিতে সাদ্দামের পরিবারের সদস্যরা সহ কৃষক হেলাল উদ্দিন ইয়াসমীনের বাবার বাড়ি গিয়ে পরিবারের সাথে আলোচনায় অংশ গ্রহন করে স্বামী-স্ত্রীকে মিলিয়ে দিয়েছিল।

 

কিন্তুু পরবর্তীতে উক্ত গৃহবধূর হত্যার ঘটনায় গৃহবধুর বড় ভাই বুকল মিয়া বাদী হয় এবং একটি কুচক্রী মহলের চক্রান্তে কৃষক হেলাল উদ্দিনকে অযথায় জড়িয়ে হয়রানি করা হয়। এ বিষয়ে কৃষক হেলাল উদ্দিন উক্ত হত্যা মামলা থেকে অব্যাহতি প্রদানের জন্য সরজমিন তদন্তপূর্বক উর্ধ্বতন পুলিশ প্রশাসনের আশু হস্তক্ষেপ কামনা করছেন।

Print Friendly, PDF & Email
Spread the love
  •  
  •  
  •  

Please Share This Post in Your Social Media

Leave a Reply

Your email address will not be published. Required fields are marked *

More News Of This Category
© All rights reserved © 2022
ডিজাইন ও কারিগরি সহযোগিতায়: রায়তা-হোস্ট
raytahost-gsnnews