বুধবার, ২২ সেপ্টেম্বর ২০২১, ০৮:৫২ পূর্বাহ্ন
শিরোনাম :
‘ক্রাউন জুয়েল’ বা ‘মুকুট মণি’ শেখ হাসিনা মালয়েশিয়া বৃক্ষরোপণ খাতে ৩২ হাজার বিদেশি কর্মী নিয়োগ দেবে ফলোআপ :নান্দাইলে স্ত্রী হত্যার মামলার প্রধান আসামী স্বামী গ্রেফতার থানায় অভিযোগ করায় বাশেঁর বেড়া দিয়ে জায়গা দখল ॥ পুকুরের মাছ বিক্রি জাতিসংঘের এসডিজি অগ্রগতি পুরস্কার পেলেন প্রধানমন্ত্রী নান্দাইলে পল্লীতে জমি নিয়ে বিরোধ ॥ গাছের চারা ॥ পুকুরের মাছ মেরে ফেলার অভিযোগ সালমানের উপস্থাপনার জন্য পারিশ্রমিক ৩৫০ কোটি! দেশে বিশ্ববিদ্যালয় খোলা নিয়ে যা বললেন শিক্ষামন্ত্রী নাইন-ইলেভেন হামলার পর আফগান ইস্যুতে আমেরিকার সঙ্গে বন্ধুত্বে বিপদে পড়ে পাকিস্তান নিয়োগ : নারী ও শিশু নির্যাতন দমন ট্রাইব্যুনালে

যেন দিবসে সীমাবদ্ধ না থাকে

তামান্না আক্তার
  • Update Time : রবিবার, ১ আগস্ট, ২০২১
  • ৩১ Time View

জীবনে চলার পথে নানা ধরনের মানুষের সঙ্গে পরিচয় হয় আমাদের। কিছু মানুষ আগে থেকে পরিচিত থাকে আর কিছু অপরিচিত। অচেনা-অপরিচিত হয়েও কেউ কেউ হয়ে যায় কাছের, অতি আপন। এক ধরনের আত্মার সম্পর্ক গড়ে ওঠে তাদের সঙ্গে। জীবনে চলার পথে কিছু মানুষের সঙ্গে নিঃস্বার্থ সম্পর্ক হয়, যাকে বলে বন্ধুত্ব। এই সম্পর্কে থাকে না কোনো লাভ বা ক্ষতির হিসাব, থাকে না কোনো লুকোচুরি। বন্ধুর কাছে মন খুলে সব বলা যায়। বন্ধু হতে পারে যে কেউ- সহপাঠী, আত্মীয়-স্বজন, প্রতিবেশী, অপরিচিত ব্যক্তি কিংবা পরিবারের সদস্য। বন্ধুত্বের কোনো বয়সসীমা নেই। মনের বন্ধন থাকলেই বন্ধু হওয়া যায়।

বন্ধুত্বের প্রতি ভালোবাসা আর শ্রদ্ধাবোধ নিয়ে প্রতিবছর পালন করা হয় বন্ধু দিবস। যতটুকু জানা যায়- এ দিবসের প্রচলন হয়েছিল যুক্তরাষ্ট্রে। ১৯১৯ সালের আগস্ট মাসের প্রথম রোববার সর্বপ্রথম ‘বন্ধু দিবস’ পালন করা হয়। তবে অন্য একটি তথ্যমতে, ১৯৩৫ সালে যুক্তরাষ্ট্রের সরকার এক ব্যক্তিকে হত্যা করেছিল। দিনটি ছিল আগস্টের প্রথম শনিবার। এর প্রতিবাদে পরদিন ওই ব্যক্তির এক বন্ধু আত্মহত্যা করেন। এরপর থেকে নানা ক্ষেত্রে বন্ধুদের অবদানের প্রতি সম্মান জানাতে মার্কিন কংগ্রেস ১৯৩৫ সালে আগস্টের প্রথম রোববারকে বন্ধু দিবস হিসাবে পালনের সিদ্ধান্ত নেয়। এই দিনে বন্ধুরা নিজেদের মধ্যে কার্ড, ফুলসহ নানা উপহার বিনিময় করে দিবসটি উদযাপন করে থাকে। পুরোনো ও নতুন বন্ধুদের মিলনমেলায় উদযাপিত হয় দিনটি।

জীবনে চলার পথে আমরা নানা ধরনের বন্ধুর মুখোমুখি হই। কিছু ভালো বা সৎ বন্ধু আর কিছু মন্দ বা অসৎ বন্ধু। অসৎ বন্ধুদের মনমানসিকতা থাকে স্বার্থকেন্দ্রিক। মুখে মিষ্টি কথা থাকলেও অন্তরে থাকে বদমতলব। তারা কখনো বন্ধুদের সুপরামর্শ দেয় না বা সঠিক পথ দেখায় না। ‘সৎ সঙ্গে স্বর্গবাস অসৎ সঙ্গে সর্বনাশ’ উক্তিটি বন্ধুত্বের সঙ্গে সম্পর্কিত। প্রাত্যহিক জীবনে আমাদের সৎ বন্ধুরা যেমন ভুল থেকে বাঁচিয়ে আলোর পথ দেখায়, তেমনি অসৎ বন্ধুরা জীবনের মোড় ঘুরিয়ে দেয় ধ্বংসের দিকে। তাই বলা হয়, ‘সঙ্গদোষে লোহা ভাসে’। অন্যদিকে সৎ বন্ধুদের মন থাকে সাদা। তারা নিজেদের সর্বোচ্চ দিয়ে বন্ধুকে সহযোগিতা করতে এগিয়ে আসে সর্বক্ষেত্রে। সময়ের সঙ্গে সঙ্গে বন্ধুত্ব মজবুত হয়ে ওঠে। অনেক সময় বিপদের মুহূর্তে বন্ধু আমাদের একমাত্র সহায় হয়ে দাঁড়ায়। বন্ধু অনেক সময় রক্তসম্পর্কীয় আত্মীয় থেকেও বেশি আপন হয়ে ওঠে।

বর্তমান তথ্যপ্রযুক্তির যুগে আমাদের বন্ধুত্বটা সীমাবদ্ধ হয়ে গেছে ফেসবুকে-মেসেঞ্জারে। ভার্চুয়াল জগতে আমরা নানা ধরনের বন্ধু তৈরি করে থাকি; কিন্তু এর স্থায়িত্ব হয় একদিন, দুদিন বা কয়েক মাস। এমন বন্ধুত্বে থাকে না কোনো বিশ্বাস বা আস্থার জায়গা। তবে সবকিছু ছাপিয়ে জীবনে সৎ বন্ধুর গুরুত্ব অপরিসীম। জীবনের মোড় ঘুরিয়ে সফলতার পথ দেখাতে পারে ভালো বন্ধুরা। তাই বন্ধুত্ব হোক ভালোবাসার প্রতীক এবং তা যেন কেবল দিবসে সীমাবদ্ধ না থাকে।

তামান্না আক্তার : শিক্ষার্থী, জগন্নাথ বিশ্ববিদ্যালয়, ঢাকা

Print Friendly, PDF & Email
Spread the love
  •  
  •  
  •  

Please Share This Post in Your Social Media

Leave a Reply

Your email address will not be published. Required fields are marked *

More News Of This Category
© All rights reserved © 2020
ডিজাইন ও কারিগরি সহযোগিতায়: রায়তা-হোস্ট
raytahost-gsnnews