বুধবার, ৩০ নভেম্বর ২০২২, ০১:০৩ অপরাহ্ন
শিরোনাম :
বাসার বিছানায় স্ত্রীর গলাকাটা লাশ, ফ্যানে ঝুলছিল স্বামী বিএনপি ২৬ শর্তে সোহরাওয়ার্দীতে গণসমাবেশের অনুমতি পেল গত পাঁচ বছরে মাংসের দাম বেড়েছে দ্বিগুণেরও বেশি নান্দাইলের ধরগাঁও গ্রাম থেকে ৩টি গরু হারিয়ে যাবার অভিযোগ ॥ থানায় জিডি মাদকদ্রব্যের অপব্যবহার রোধকল্পে সমম্বিত কর্মপরিকল্পনা প্রণয়ন কর্মশালা অনুষ্ঠিত সরাসরি রেমিট্যান্স আনার সুযোগ পেলো মোবাইল ব্যাংকিং প্রতিষ্ঠান, বাংলাদেশ ব্যাংক থেকে সার্কুলার জারি নান্দাইলের পল্লীতে বাড়িঘরে হামলা ॥ টাকা সহ গরু লুট মহিলা সহ আহত ৫ ॥ ১০ জনের নামে মামলা নান্দাইলের পল্লীতে বাড়িঘরে হামলা ॥ টাকা সহ গরু লুট মহিলা সহ আহত ৫ ॥ ১০ জনের নামে মামলা ৩৮৩ পদে কারা অধিদপ্তরে নিয়োগ, দিতে হবে ডোপ টেস্ট বাংলাদেশকে বাঁচাতে হলে আওয়ামী লীগ ও মুক্তিযুদ্ধকে বাঁচাতে হবে : ওবায়দুল কাদের

‘৫ ঘন্টায় ৫০ টাকা রোজগার ’ লকডাউনে ভালো নেই নিম্ন আয়ের মানুষেরা

শাহজাহান ফকির, স্টাফ রিপোর্টার
  • Update Time : সোমবার, ৫ জুলাই, ২০২১
  • ১০৬ Time View

কোভিড-১৯ সংক্রমন প্রতিরোধকল্পে সরকার ঘোষিত সারা দেশে লকডাউনে নিম্ন আয়ের মানুষের চরম দূর্ভোগ দেখা দিয়েছে। একদিকে যেমন বর্ষাকাল দিনভর বৃষ্টিতে কোন কাজ করা যাচ্ছেনা, অন্যদিকে তেমন করোনা ভাইরাসের লকডাউনের কারনে ঘর বন্দি হয়ে আছে নিম্ন আয়ের সাধারন মানুষ। এ যেন ‘মরার উপর খাঁড়ার ঘা’।

 

দিনে আনে দিন খায় তথা হতদরিদ্র পরিবারগুলো বের হতে পারছেনা অর্থ বা খাদ্যের খোঁজে। যেখানে নুন আনতে পানতা ফুরায় সেখানে নেই কোন কর্ম। লকডাউনে পাচ্ছেনা কোন কাজ। এছাড়া সেলুনের নাপিত, মুচি, কাঠ মিস্ত্রি, দিন মুজুর, পরিবহন শ্রমিক, হকার, ফেরিওয়ালা, ক্ষুদ্র যানবাহন মেকার, চায়ের দোকন, পান দোকান ইত্যাদি ও ক্ষুদ্র ব্যবসায়ীরা পড়েছে বিপাকে। ফলে সংসারের খরচ যোগাতে হিমশিম খাচ্ছে।

ঠিক তেমনি বিপাকে পড়েছে ময়মনসিংহের নান্দাইল চৌরাস্তা এলাকার শ্রী মানিক রবি দাস ও শিবনাথ রবি দাস নামে দুই মুচি। মানুষের জুতা সেলাই করে তাদের সংসার চলে। যাদের একদিন কাজ না করলে পরিবারে সদস্যদেরকে নিয়ে না খেয়ে থাকতে হয়। তবে পেটের ক্ষুধা তো মানে না বারণ। তাই লকডাউনের চতুর্থ দিনেও রবি দাস ও শিবনাথ দাস বাধ্য হয়ে নান্দাইল চৌরাস্তা গোল চত্বরে জুতা সেলাই কাজ করতে বসে থাকতে দেখা যায়।

লকডাউনে কেন বাহির হয়েছেন তা জানতে চাইলে তারা জানায় যে, গত লকডাউনেও তাদেরকে খুব কষ্ট করতে হয়েছে। তাই এবার লকডাউন উপেক্ষা করেই পেটের দায়ে বের হয়েছেন। কিন্তু লকডাউনে সব কিছু বন্ধ থাকায় অর্থাৎ মানুষের চলাফেরা না থাকায়, কেউ জুতা সেলাই বা রং করতে আসে না। ফলে দিনের ৫ ঘন্টা শেষে মাত্র ৫০ টাকা রোজগার করেছেন।

রবিদাস এই প্রতিবেদককে জানান, “হয় সরকার আমাদের খাবার দেউক, না হয় লকডাউন তুলে নেউক। আর যে পারছিনা। চোখের সামনে স্ত্রী ও দুই সন্তানদের না খেয়ে মরতে দেখতে পারবো না।” শ্রী শিবনাথ দাস জানান, তার পরিবারে ১০জন সদস্য রয়েছে, দিন শেষে মাত্র ৭০ টাকা রোজগার করেছে। তিনি আরও জানান, ‘এই টাকা দিয়ে না পারমু চাউল কিনতে, না পারমু মাছ কিনতে’। কিভাবে যে বাড়ির লোকজনের খাবার যোগাবো তা জানিনা।”

লকডাউন যে ১৪ জুলাই পর্যন্ত বাড়িয়েছে তা জানেন কিনা জানতে চাইলে তারা বলেন, বাবা লকডাউন কখন দেয়, কখন বাড়ায় তা জানিনা। দেখি যে রাস্তায় লোকজন বের হয় না। আর শুধু জানি যে পরিবারের সদস্যদের খাবার যোগার করতে হবে। ”

কাঠ মিস্ত্রী সোহেল ও আসাদ মিয়া জানান, তারা হেলপারের কাজ করে সংসারের খাবার যোগাড় করতো, এখন অতি কষ্টে দিন কাটাচ্ছে। কি খাবে ? কি করবে তারা কোন ভেবে পাচ্ছেনা। এরকম বিভিন্ন নিম্ন আয়ের মানুষদেরকে একই কথা বলতে জানাগেছে। সরকারিভাবে করোনার ত্রাণ সহায়তা আসলেও তাদের নিকট তা অধরা থেকে যায়। এছাড়া নান্দাইলে বিত্তশালীদেরওকে তেমন ভাবে প্রণোদনা দিতে দেখা যাচ্ছেনা। ফলে এই লকডাউনে আরো বেশী বিপাকে পড়ছে নিম্ন আয়ের মানুষগুলো।

এ ব্যাপারে তারা বর্তমান সরকারের দলীয় নেতাকর্মী সহ প্রশাসনের সংশ্লিষ্ট কর্মকর্তাদের নিকট তাদের ব্যাপারে সু-দৃষ্টি কামনা করেছেন।

Print Friendly, PDF & Email
Spread the love
  •  
  •  
  •  

Please Share This Post in Your Social Media

Leave a Reply

Your email address will not be published. Required fields are marked *

More News Of This Category
© All rights reserved © 2022
ডিজাইন ও কারিগরি সহযোগিতায়: রায়তা-হোস্ট
raytahost-gsnnews