সোমবার, ২৫ মে ২০২০, ০১:২৫ অপরাহ্ন
শিরোনাম :

শেয়ার বাজারে ৫ দিনে চার হাজার কোটি টাকা উধাও

Reporter Name
  • Update Time : শুক্রবার, ৩১ জানুয়ারি, ২০২০
  • ৩ Time View

জিএসএন নিউজ ডেস্ক: আগের সপ্তাহে বড় উত্থানের পর গত সপ্তাহে দেশের পুঁজিবাজারে আবার দরপতন হয়। এক সপ্তাহে চার হাজার কোটি টাকার ওপরে হারান বিনিয়োগকারীরা। তালিকাভুক্ত প্রতিষ্ঠানের শেয়ার ও ইউনিটের দাম কমার ফলে বিনিয়োগকারীরা এ অর্থ হারান, বলছেন বিশ্লেষকরা। গত সপ্তাহের আগের সপ্তাহে পুঁজিবাজারে বড় ধরনের উত্থান হওয়ায় তালিকাভুক্ত প্রতিষ্ঠানগুলোর শেয়ার ও ইউনিটের দাম সম্মিলিতভাবে  সাড়ে ২৫ হাজার কোটি টাকা।

গত সপ্তাহে লেনদেন হওয়া পাঁচ কার্যদিবসের মধ্যে তিন কার্যদিবসে লেনদেনে অংশ নেয়া বেশিরভাগ প্রতিষ্ঠানের শেয়ার ও ইউনিটের দাম কমে যায়। এতে সপ্তাহ জুড়ে প্রধান পুঁজিবাজার ঢাকা স্টক এক্সচেঞ্জের (ডিএসই) সবকটি মূল্যসূচকের পতন হয়।

পতনের বাজারে ডিএসইতে লেনদেনে অংশ নেয়া ১১৮টি প্রতিষ্ঠানের শেয়ার ও ইউনিটের দাম বাড়ে। বিপরীতে কমে ২১৮টির। ২২টির দাম অপরিবর্তিত থাকে। এর আগের সপ্তাহে ৩২৮টি প্রতিষ্ঠানের শেয়ার ও ইউনিটের দাম বাড়ে। বিপরীতে কমে ২৩টির। অপরিবর্তিত থাকে সাতটির দাম।

গত সপ্তাহের শেষ কার্যদিবস শেষে ডিএসইর বাজার মূলধন দাঁড়ায় তিন লাখ ৪০ হাজার ৮৯২ কোটি টাকা, যা তার আগের সপ্তাহের শেষ কার্যদিবসে ছিল তিন লাখ ৪৫ হাজার ৬৯ কোটি টাকা। অর্থাৎ এক সপ্তাহে ডিএসইর বাজার মূলধন কমেছে চার হাজার ১৭৭ কোটি টাকা। অর্থাৎ বাজার পতনের কারণে বিনিয়োগকারীরা এ টাকা হারালেন।

বাজার মূলধন হারানোর সপ্তাহে ডিএসইর প্রধান সূচক ডিএসইএক্স আগের সপ্তাহের তুলনায় ৪৪ দশমিক ২৪ পয়েন্ট বা দশমিক ৯৮ শতাংশ কমে। এর আগের সপ্তাহে সূচকটি বাড়ে ৩৬৪ দশমিক শূন্য ৬ পয়েন্ট বা ৮ দশমিক ৭৭ শতাংশ।

প্রধান মূল্যসূচকের সঙ্গে পতন হয় ডিএসইর বাছাই করা কোম্পানি নিয়ে গঠিত ডিএসই-৩০ সূচকেরও। গত সপ্তাহে সূচকটি কমেছে ১৯ দশমিক ৩৮ পয়েন্ট বা ১ দশমিক ২৬ শতাংশ। আগের সপ্তাহে সূচকটি বাড়ে ১৩৬ দশমিক ৮৩ পয়েন্ট বা ৯ দশমিক ৭৩ শতাংশ।

ডিএসইর অপর মূল্য সূচক ডিএসই শরিয়াহ্ কমেছে ৭ দশমিক ২১ পয়েন্ট বা দশমিক ৭০ শতাংশ। আগের সপ্তাহে সূচকটি বাড়ে ৯৫ দশমিক ২০ পয়েন্ট বা ১০ দশমিক ১৩ শতাংশ।

এদিকে পতনের বাজারে ডিএসইতে লেনদেনের গতিও কমেছে। গত সপ্তাহের প্রতি কার্যদিবসে ডিএসইতে গড়ে লেনদেন হয় ৪৪৫ কোটি নয় লাখ টাকা। আগের সপ্তাহে প্রতিদিন লেনদেন হয় ৪৫৩ কোটি ১৫ লাখ টাকা। অর্থাৎ প্রতি কার্যদিবসে গড় লেনদেন কমেছে আট কোটি ছয় লাখ টাকা বা ১ দশমিক ৭৮ শতাংশ।

গত সপ্তাহজুড়ে ডিএসইতে মোট লেনদেন হয় দুই হাজার ২২৫ কোটি ৪৫ লাখ টাকা। এর আগের সপ্তাহে লেনদেন হয় দুই হাজার ২৬৫ কোটি ৭৮ লাখ টাকা। সে হিসাবে মোট লেনদেন কমেছে ৪০ কোটি ৩৩ লাখ টাকা বা ১ দশমিক ৭৮ শতাংশ।

গত সপ্তাহের মোট লেনদেনের মধ্যে ‘এ’ গ্রুপের প্রতিষ্ঠানের অবদান দাঁড়িয়েছে ৮০ দশমিক ৫১ শতাংশ। এছাড়া ডিএসইর মোট লেনদেনে ‘বি’ গ্রুপের অবদান ১০ দশমিক ৭১ শতাংশ। ‘জেড’ গ্রুপের প্রতিষ্ঠানের অবদান দশমিক ৯০ শতাংশ এবং ‘এন’ গ্রুপের অবদান ৭ দশমিক ৮৮ শতাংশ।

টাকার অংকে সবচেয়ে বেশি লেনদেন হয় লাফার্জ হোলসিম বাংলাদেশের শেয়ার। কোম্পানিটির ১৮৮ কোটি ৫৫ লাখ টাকার শেয়ার লেনদেন হয়েছে, যা সপ্তাহজুড়ে হওয়া মোট লেনদেনের ৮ দশমিক ৪৭ শতাংশ। দ্বিতীয় স্থানে থাকা এডিএন টেলিকমের শেয়ার লেনদেন হয় ৫৭ কোটি ৪৬ লাখ টাকার, যা সপ্তাহের মোট লেনদেনের ২ দশমিক ৫৮ শতাংশ। ৫৬ কোটি ২১ টাকার শেয়ার লেনদেনের মাধ্যমে তৃতীয় স্থানে রয়েছে স্কয়ার ফার্মাসিউটিক্যাল।

লেনদেনে এরপর রয়েছে- প্যারামাউন্ট টেক্সটাইল, এসএস স্টিল, বাংলাদেশ সাবমেরিন ক্যাবলস, গ্রামীণফোন, ব্রিটিশ আমেরিকান টোব্যাকো বাংলাদেশ, খুলনা পাওয়ার কোম্পানি এবং পাইওনিয়ার ইন্স্যুরেন্স।

সূত্র: জাগো নিউজ

Please Share This Post in Your Social Media

Leave a Reply

Your email address will not be published. Required fields are marked *

More News Of This Category
© All rights reserved © 2020
ডিজাইন ও কারিগরি সহযোগিতায়: রায়তা-হোস্ট
raytahost-gsnnews