পরকীয়ায় ফেঁসে গেলেন চেয়ারম্যান ও গৃহবধূ

ক্রাইম রিপোর্ট রংপুর

জয়পুরহাটের পাঁচবিবি উপজেলার আওলাই ইউনিয়নের চেয়ারম্যান আব্দুর রাজ্জাকের (৫২) বাড়ি ও পরিষদ চত্বরে বিয়ের দাবিতে অনশন করেছেন ফারিয়া আখতার চুমকী (৩৮) নামের এক গৃহবধূ। সোমবার এ ঘটনা ঘটে।

ফারিয়া আখতার চুমকী গাইবান্ধা জেলার কামদিয়া এলাকার ব্যবসায়ী সনি চৌধুরীর স্ত্রী। তিনি এক কন্যা সন্তানের জননী। অভিযুক্ত চেয়ারম্যান আব্দুর রাজ্জাক পাঁচবিবি উপজেলার ছাতিনআলী গ্রামের মৃত ইউনুস মণ্ডলের ছেলে এবং আওলাই ইউনিয়ন বিএনপির এক নম্বর সদস্য।

ফারিয়া আখতার চুমকী অভিযোগ করে বলেন, ৬-৭ মাস আগে মোবাইলে ফোনে চেয়ারম্যানের সঙ্গে পরিচয় হয়। পরিচয়ের পর থেকেই বিয়ের প্রলোভন দেখিয়ে সে বিভিন্ন জায়গায় নিয়ে গিয়ে আমার সঙ্গে দৈহিক সম্পর্ক গড়ে তোলে। কিছুদিন আগে আমাদের সম্পর্কের ব্যাপারটি স্বামীসহ আমার আত্মীয়দের মধ্যে জানাজানি হয়। তারা আমার উপর চাপ সৃষ্টি করে। বিষয়টি চেয়ারম্যানকে জানালে এবং বিয়ের চাপ দিলে সে টালবাহানা শুরু করে। উপায় না দেখে চেয়ারম্যানের কাছে এসেছি। আমার আসার খবর পেয়েই সে পালিয়ে গেছে।

তবে আওলাই ইউনিয়ন বিএনপির সাধারণ সম্পাদক কাজী আমিনুল ইসলাম জানান, গৃহবধূকে তার পরিবারের সদস্যরা রাতে এসে নিয়ে গেছে। ঘটনা সত্য নয়। এটি একটি সাজানো নাটক।

আওলাই ইউনিয়ন পরিষদের সদস্য সেকেন্দার আলী বলেন, পাশের জেলার এক গৃহবধূ চেয়ারম্যানের বিরুদ্ধে শারীরিক সম্পর্ক গড়ার অভিযোগ করে বিয়ের দাবিতে এসেছে। যেহেতু এটা প্রমাণসাপেক্ষ ব্যাপার তাই তাকে আইনানুগ ব্যবস্থা নিতে পরামর্শ দেয়া হয়েছে।

এ বিষয়ে জানতে আওলাই ইউনিয়ন পরিষদের চেয়ারম্যান আব্দুর রাজ্জাকের সঙ্গে মোবাইল ফোনে যোগাযোগ করা হলে তিনি ফোন ধরেননি।

পাঁচবিবি থানার ভারপ্রাপ্ত কর্মকর্তা (ওসি) মুনসুর রহমান জানান, ঘটনাটি শুনেছি। তবে গৃহবধূ অভিযোগ দিলে তদন্তসাপেক্ষে প্রয়োজনীয় ব্যবস্থা গ্রহণ করা হবে।

সূত্র: মানবকণ্ঠ/এফএইচ

106total visits,2visits today

Leave a Reply

Your email address will not be published. Required fields are marked *