শুক্রবার, ৩০ সেপ্টেম্বর ২০২২, ০৬:০১ পূর্বাহ্ন
শিরোনাম :
বঙ্গবন্ধু স্যাটেলাইটের ৮ দিন সম্প্রচারে বিঘ্ন ঘটতে পারে মালয়েশিয়ায় বিদেশি কর্মীদের ভিসা নবায়নের সিদ্ধান্ত গ্রহন নাসা গ্রুপে ক্যারিয়ার গড়ুন প্রধানমন্ত্রী শেখ হাসিনার ৭৬তম জন্মদিন উপলক্ষে তরুণ শিক্ষার্থীদের গ্রন্থ উপহার ও আলোচনা সভা এক ঘণ্টা বাড়ছে অফিস সময় নান্দাইলের বীরবেতাগৈর ইউনিয়নে একটি পরিবারকে মিথ্যা মামলায় হয়রানীর অভিযোগ অং সান সু চি’র আরও তিন বছরের সশ্রম কারাদণ্ড সরকার পতনের আন্দোলন ইরান জুড়ে ছড়িয়ে পড়ছে নান্দাইলে আওয়ামীলীগ নেতা জালাল মাস্টারের উদ্যোগে প্রধানমন্ত্রী শেখ হাসিনার ৭৬তম জন্মদিন পালিত প্রধানমন্ত্রীর জন্মদিনে রাষ্ট্রপতির প্রাণঢালা শুভেচ্ছা

চার্জে দিয়ে মোবাইল ফোনে কথা বলা, গেম খেলা, ব্রাউজ করা কতোটা নিরাপদ

Reporter Name
  • Update Time : শনিবার, ২৭ জুলাই, ২০১৯
  • ৮৪ Time View
বিস্ফোরণে পুড়ে যাওয়া একটি ফোন।

বিস্ফোরণে পুড়ে যাওয়া একটি ফোন।

জিএসএন ডেক্স : মোবাইল ফোন চার্জ করতে দিয়ে অনেকেই কানে লাগিয়ে কথা বলেন বা গেম খেলেন বা ইন্টারনেট ব্রাউজ করেন। কিন্তু চার্জ দেওয়ার সময়ে ফোন ব্যবহার করাটা কি আদৌ নিরাপদ?

প্রযুক্তিবিদরা বলছেন, ভাল ব্র্যান্ডের মোবাইল ফোন আর ওই একই কোম্পানির চার্জার ব্যবহার করলে বিপদের সম্ভাবনা অনেকটাই কম।

অনেক ঘটনার কথাই জানা যায়, যেখানে মোবাইল ফোন বিস্ফোরণে কারও মৃত্যু হয়েছে অথবা কারও শরীরের কোনও অংশ ঝলসে গেছে।

গত সপ্তাহে এরকমই এক ঘটনা ঘটেছে পশ্চিমবঙ্গের দুর্গাপুর শহরে। রিয়া ব্যানার্জী নামে ২২ বছরের এক তরুণী মোবাইলে চার্জ দেওয়ার সময়েই কথা বলছিলেন। হঠাৎই বিস্ফোরণ ঘটে। অগ্নিদগ্ধ অবস্থায় হাসপাতালে নিয়ে গেলে তার মৃত্যু হয়।

দমকল বাহিনী বলছে, ওই তরুণী যে বিছানায় বসে কথা বলছিলেন মোবাইল ফোন চার্জে দিয়েই, সেই বিছানাও কিছুটা পুড়ে গেছে। ঘর থেকে ফেটে যাওয়া মোবাইল, চার্জার এসব উদ্ধার করা হয়েছে।

ঘটনার পরেই মিজ. ব্যানার্জীর বাড়িতে গিয়েছিলেন স্থানীয় বাসিন্দা অভিজিত দাস।

তিনি স্থানীয় সাংবাদিকদের জানিয়েছেন, “হঠাৎই বিস্ফোরণের শব্দ পাই। মেয়েটি চিৎকারও করছিল। ওদের বাড়িতে গিয়ে দেখি মেয়েটি অনেকটা পুড়ে গেছে। বিছানাতেও আগুন লেগে গিয়েছিল। মোবাইলেই যে বিস্ফোরণ হয়েছে, সেটা দেখেই বোঝা যাচ্ছিল। পাশেই চার্জারের কেবলও পড়ে ছিল।”

চীনে ২০১৩ সালে মোবাইল ফোন বিস্ফোরণে পুড়ে গেছে। তবে সেসময় ফোনটি চার্জে দেওয়া ছিল না বলে এর ব্যবহারকারী জানিয়েছেন।ছবি সংগৃহীত- চীনে ২০১৩ সালে মোবাইল ফোন বিস্ফোরণে পুড়ে গেছে। তবে সেসময় ফোনটি চার্জে দেওয়া ছিল না বলে এর ব্যবহারকারী জানিয়েছেন।

যে স্থানীয় সাংবাদিকরা সেখানে গিয়েছিলেন, তাদের একজন বলছিলেন, “আমরা যখন ফেটে যাওয়া মোবাইলটার ছবি তুলছিলাম, তখনই খেয়াল করি যে ওটা কোন নামী ব্র্যান্ডের সেট ছিল না। স্ক্রিনটাও ফেটে গিয়েছিল। মোবাইলের সঙ্গেই একটা লাল রঙের চার্জিং কেবল যুক্ত ছিল। সেই তারের আবার দুটো জায়গায় লিউকোপ্লাস্ট জড়ানো।”

সন্দেহ করা হচ্ছে, চার্জ দেওয়ার সময়ে কোনও ভাবে বিদ্যুতের শর্ট সার্কিট হয়ে বিস্ফোরণ ঘটেছে। আর যেহেতু সেই সময়ে মিজ. ব্যানার্জী মোবাইলে কথা বলছিলেন, তাই সেটি ছিল কানের সঙ্গে লাগানো। তাতেই বিস্ফোরণের আঘাত অনেকগুণ বেড়ে গেছে।

মিজ. ব্যানার্জীর ঘটনাই প্রথম নয়। ২০০৪ আর ২০০৫ সালে এরকম দুটি ঘটনার কথা জানা যাচ্ছে, যেখানে ফোনে চার্জ দেওয়ার সময়ে তড়িতাহত হন এক ভারতীয় এবং এক নাইজেরীয় নাগরিক। ২০১৩ সালে এক চীনা বিমানসেবিকা যখন তার ফোনে চার্জ দেওয়ার সময়ে একটি কল রিসিভ করেন, সেটি ফেটে গিয়ে তার মৃত্যু হয়।

চীনে ২০১৩ সালে ওয়াং কাই নামের এক যুবক জানান, তিনি যখন ঘুমিয়ে ছিলেন তখন তার ফোন বিস্ফোরিত হয়ে সম্পূর্ণ পুড়ে গেছে। এই ঘটনায় তার বিছানার কিছু অংশও পুড়ে যায়। এসময় ফোনটি চার্জে দেওয়া ছিল না বলেও তিনি জানান। স্থানীয় পুলিশ বলেছিল, ফোনটির ত্রুটির কারণে এরকম হয়ে থাকতে পারে।

ইউ এস কনজিউমার প্রোডাক্ট সেফটি কমিশন বলছে, ২০১২ থেকে ২০১৭ সালে মোবাইল ফোনের ব্যাটারি আর চার্জারের কারণে ২,০০০ দুর্ঘটনা তারা নথিবদ্ধ করেছে।

এর মধ্যে যেমন রয়েছে আগুন লেগে যাওয়া, অতিরিক্ত গরম হয়ে যাওয়া, গলে যাওয়ার ঘটনা, তেমনই আছে ফোন থেকে ধোঁয়া বের হওয়া আর বিস্ফোরণের ঘটনাও।

পুড়ে যাওয়া বিছানা দেখাচ্ছেন ওয়াং কাই।ছবির কপিরাইট- পুড়ে যাওয়া বিছানা দেখাচ্ছেন ওয়াং কাই।

প্রযুক্তিবিদদের ব্যাখ্যা, মোবাইল ফোন অতিরিক্ত গরম হয়ে যেতেই পারে। কিন্তু তাপমাত্রা খুব বেড়ে যাওয়ার আগেই মোবাইলে এমন কয়েকটি সুরক্ষা কবচ থাকে, যা চূড়ান্ত তাপমাত্রায় পৌঁছতেই দেয় না।

এক বিখ্যাত মোবাইল ফোন প্রস্তুতকারী কোম্পানির একজন সিনিয়র প্রযুক্তিবিদ, যিনি তার নাম প্রকাশ করতে চাননি, বলছিলেন, “যে সুরক্ষা কবচ আমাদের মতো কোম্পানির মোবাইলে থাকে, তাতে বিস্ফোরণ হওয়ার কোনও সম্ভাবনা নেই। তবে চার্জ হওয়ার সময়ে মোবাইল কিছুটা গরম হয়েই থাকে। তবে সেটা থেকে বিপদের সম্ভাবনা থাকে না বড় ব্র্যান্ডের ফোনে।”

“কিন্তু সস্তা ও অনামী যেসব ব্র্যান্ড আছে, তারা হয়তো এরকম সুরক্ষা ব্যবস্থা রাখে না। আবার যে কোম্পানির ফোন, তাদের সরবরাহ করা চার্জার ব্যবহার না করে সস্তার কোনও চার্জার ব্যবহার করলেও, এরকম হওয়ার সম্ভাবনা থাকে।”

সূত্র- বিবিসি বাংলা

Print Friendly, PDF & Email
Spread the love
  •  
  •  
  •  

Please Share This Post in Your Social Media

Leave a Reply

Your email address will not be published. Required fields are marked *

More News Of This Category
© All rights reserved © 2022
ডিজাইন ও কারিগরি সহযোগিতায়: রায়তা-হোস্ট
raytahost-gsnnews